লেবু চায়ের উপকারিতা।চলুন জেনে নি লেবু চায়ে কি কি উপকারিতা রহেছে।

0
1222
লেবু চায়ের উপকারিতা
লেবু চায়ের উপকারিতা

আমরা অনেকেই লেবু চা পান করে থাকি কিন্তু আমরা জানি না লেবু চায়ের উপকারিতা সম্পর্কে। তাছাড়া আজকাল অনেকেই দেখা যায় স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন তারজন্য দুধ-চা এবং মিষ্টি চা খাওয়া থেকে এড়িয়ে যান৷ আবার অনেকের সুগার, পেটে বিভিন্ন সমস্যার জন্য এখন অনেকেরই লেবু দেওয়া চা বা লেবু-চায়ের প্রতি বেশি ঝোঁক৷

জেনে নিন লেবু চায়ের উপকারিতা :-

লেবু-চায়ের কিছু উপকারিতা
  • সকলেই জানেন লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি থাকে, তার ফলে আমাদের শরীরের ত্বকেকে ব্রণের হাত থেকে অনেকটাই রক্ষা করে সাথে সাথে ত্বকের উন্নতিতেও সাহায্য করে থাকে।

লেবু-চা দাঁতের ব্যথা :-

  • লেবু-চা দাঁতের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। অনেক সময়ে মাড়ি থেকে রক্ত পড়া বন্ধ করতে লেবু চা খুবই কার্যকর। তাছাড়াও মুখের গন্ধ দূর করতে লেবু-চা কার্যকর। আর দাঁতে প্লাক জমার কারণে যে অনাকাঙ্ক্ষিত দাগ পড়ে, তা সরাতেও লেবু-চা বিশেষ ভাবে সাহায্য করে থাকে।আমাদের সকলের জানা ধরকার লেবু চায়ের উপকারিতা ।

লেবু-চা আমাদের ত্বকের :-

  • লেবু-চা আমাদের ত্বকের ক্ষত পূরণে কার্যকর। লেবু-চা পান করলে ত্বকে কোলাজেনের মাত্রা বেড়ে যায়। যার ফলে ত্বক উজ্জ্বল করে তোলে। সাথে সাথে লেবু যেমন ত্বকের পোড়াভাব যেমন দূর করতে পারে, তেমনি চোখের চারপাশের কালো দাগও মিলিয়ে দিতে সাহায্য করে থাকে। আমাদের সকলের জানা ধরকার লেবু চায়ের উপকারিতা।

আমাদের শরীরের অনেক :-

লেবু-চায়ের কিছু উপকারিতা
  • আমাদের শরীরের অনেক সময়ে জ্বর আসে, সেই সময়ে টক খেতে নিষেধ করলেও শরীরর থেকে ব্যাকটিরিয়ার প্রভাবমুক্ত করার জন্য ডাক্তার বাবুরা লেবু-চা খাওয়ার কথা বলেন

অনেক সময় আমরা :-

অনেক সময় আমরা মানসিক চাপে ভুগি, এই লেবু-চা আমাদের মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে৷ তাছাড়া এলাকার অল্পবয়েসিদের চায়ের নেশা থাকলে বারবার দুধ দেওয়া চা খেতে অনেকেই নিষেধ করে থাকেন৷ শরীরকে চনমনে করে তুলতে লেবুর গুরুত্ব অপরিসীম৷ তাইতো লেবুর শরবতের বিকল্প হয় না৷

তবে মনে রাখবেন লেবু কিন্তু সকলকে সমভাবে সাহায্য নাও করতে পারে৷ তাই অনেকের টকের সমস্যা থাকলে থাকতেও পারে তাই যাদের এই সমস্যা থাকবে তারা লেবু-চা এড়িয়ে যাবক। আমরা অনেকে জানি নি লেবু চায়ের উপকারিতা সম্পর্কে।

লেবু চা এর অপকারিতা

লেবু চা পানের অপকারিতা ? আমরা সাধারণত সকালের নাস্তা বা দুপুরের খাবারের পর পরই লেবু চা বা কফি পানকরি। অনেকেরই এটা প্রতিদিনের অভ্যাস। কেননা লেবু চা, কফি পান করার অনেক উপকারিতা রয়েছে।

তবে এই অভ্যাস স্বাস্থ্যসম্মত নয়।সঠিক সময়ে বা উপায়ে লেবু চা না পান করলে তা শরীরে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ঘটায়। লাল চা বা সবুজ চা যে ধরণেরই চা হোক নাকেন, তা উপকারিতার পাশাপাশি শরীরে অন্য খাবার গুলো থেকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি পাওয়া থেকে বঞ্চিত করে এবং হজমে বাঁধা সৃষ্টি করে।

খাবার খাওয়ার আগে চা পান করলেও হজমে বাঁধাগ্রস্থ হয় এবং খাবার থেকে প্রয়াজনীয় পুষ্টি পাওয়া যায় না।কেন খাবার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চা পান করবেন না?

  • লেবু চা খাবার থেকে আয়রন শোষণ করে। কারণ চা বা কফিতে রয়েছে পলিফেনন জেস্টানিন নামক উপাদান যা আয়রন শোষণ করে বা জেস্টানিনরে সঙ্গে আয়রন মিশে শরীর থেকে বের হয়ে যায়।
  • লেবু চা শরীরে থায়ামিন বা ভিটামিন বি শোষণ রোধ করে যা বেরিবেরি রোগের অন্যতম কারণ।
  • লেবু চা খাবার থেকে আমিষ ও ভিটামিন শোষণ করে এবং শরীর এই খাবারগুলোকে হজম করতে পারে না
  • লেবু চা এর মধ্যে অ্যাসিডাম টেনিকামস ও জেসথিয়োফিলিনস নামক উপাদান রয়েছে যাপাকস্থলীর হজম প্রক্রিয়া ব্যাহত করেকখন লেবু চা বা কফি পান করবেন?এসব সমস্যার কারণে কি লেবু চা পান করা বাদ দিবেন? অবশ্যই নাকেননালেবু চা ও কফি পান করার অনেক উপকারীতা আছে। তাই কিছু নিয়ম মেনে চললে এসব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
  • খাবার খাওয়ার অন্তত: আধা ঘণ্টা আগে অথবা খাবার খাওয়ার এক ঘণ্টা পরে চা পান করা।
  • সকাল, দুপুর এবং রাতের খাবারের ১ থেকে ২ ঘণ্টা পরে লেবু চা বা কফি পান করা।
  • যাদের রক্তশূন্যতা আছে, কম বয়স্ক মেয়েরা বা যেসব নারীরা বৃদ্ধ নয় তাদের এই সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।
  • লেবু যাদের হজমে ও অম্লত্বর সমস্যা রয়েছে তাদেরও এই সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here