সুন্দর থাকতে ১০০ টি রুপ চর্চা পরামর্শ

0
1461
সুন্দর থাকতে ১০০ টি রুপ চর্চা পরামর্শ

আমাদের সকলের সুন্দর থাকতে ১০০ টি রুপ চর্চা পরামর্শ সম্পর্কে জানা উচিত।প্রাকৃতিক নানা উপাদান ও কিছু নিয়ম ত্বকের সুরক্ষাতে ভীষণই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।শুধু মেয়েরা নয়, ছেলেরাও এই রূপচর্চা টিপস গুলো অনুসরণ করে সুফল পেতে পারেন ।

অপর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমান

  • আপনি যদি অপর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমান তাহলে আপনার ত্বক ফ্যাকাসে, নিস্তেজ এবং শুষ্ক দেখাবে । তাই আপনাকে প্রতি রাতে অবশ্যই কমপক্ষে সাত থেকে আট ঘন্টা ঘুমাতে হবে । এটা আপনার ত্বকের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ।

পানি শরীরের জন্য

  • পানি শরীরের জন্য একটি অপরিহার্য উপাদান ।তাই পরিমাণ মতো পানি পান করুন । এটি আপনার ত্বককে সারাদিন প্রাণবন্ত করে রাখতে সাহায্য করবে ।
  • আপনার খাদ্য তালিকায় ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার রাখুন । এটা আপনার ত্বককে প্রভাবিত করে । পরিমিত পরিমাণে ভিটামিন এ এবং ই সমৃদ্ধ ফল এবং শাক-সবজি নিয়মিত গ্রহণ করুন । চর্বি ও তৈলযুক্ত খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন, এটা আপনার ত্বকে ব্রণ সৃষ্টি করতে পারে ।
  • বডি লোশন লাগানোর সবচেয়ে উৎকৃষ্ট সময় হলো গোসলের পর পর । কেননা এ সময় স্কিন সহজে লোশন শোষণ করে নেয় ।

এক গ্লাস পানির মধ্যে

  • এক গ্লাস পানির মধ্যে বরফ দিয়ে ওর মধ্যে মধু, লেবু এবং পুদিনা পাতা দিন শরবত করে নিন । সেই পানিটা পান করুন । এতে ত্বকের চমক বাড়বে ।
  • সূর্যের অতি বেগুনি (UV)রশ্মি ত্বক পুড়িয়ে ফেলে এবং স্ক্রিন ক্যান্সারের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় ।তাই রোদে বের হওয়ার ৩০ মিনিট পূর্বে সানস স্ক্রীম ত্বকে প্রয়োগ করতে হবে অথবা অল্প শসার রস, অল্প গ্লিসারিন ও অল্প গোলাপ জলের মিশ্রণ রোদে বের হওয়ার আগে ও পরে ব্যবহার করতে পারেন, মিশ্রণটি পোড়া ত্বকের জন্য উপকারী ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে ।

শরীরের মসৃণতা ধরে রাখতে

  • শরীরের মসৃণতা ধরে রাখতে প্রতিদিন একবার অত্যন্ত একবার সকাল অথবা রাতে ভাল মানের স্ক্রিন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে ।
  • সালফেট ফ্রি শ্যাম্পু ব্যবহার করুন । কেননা সালফেট চুলকে রাফ করে দেয় এবং চুলের কিউটিক্যালকে নষ্ট করে দেয় ।

সবসময় পরিষ্কার মেকআপ

  • সবসময় পরিষ্কার মেকআপ ব্রাশ নেওয়ার চেষ্টা করবেন । এত মুখে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে ব্রণ হওয়ার আশঙ্কা কমে যাবে । বছরে অন্তত তিনবার বা ৩/৪ মাস পর পর আইলাইনার এবং মাশকরা বদলে ফেলবেন ।
  • অনেকের চোখের নিচের কালি নিয়মিত সঙ্গী। চোখের নিচে কালি পড়ে অতিরিক্ত চিন্তা, রাত জাগার কারণে । চোখের নিচের কালি থেকে মুক্তি পেতে রাতে ঘুমানোর আগে শসা বা আলুর রস চোখের নিচে লাগিয়ে রাখুন । সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন ।

ত্বকের পরিচর্যার জন্য আরো কিছু পরামর্শ:

যে সকল প্রসাধনীতে সলিসাইলিক অ্যাসিড বা সাধারণ তেল, যেমন: জলপাইয়ের তেল ইত্যাদি, রয়েছে চেহারার কালো দাগ দূর করার জন্য আপনি তা ব্যবহার করতে পারেন। এতে সাধারণ কালো দাগ দূর হয়ে যাবে। কিন্তু খুব গাড় কালো দাগ দূর না হলেও তা অনেকটা হালকা হয়ে আসবে।

  • নিঃশ্বাসের দুগন্ধ থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত দুই কোয়া করে কমলালেবু খান। দুই মাস পর এ সমস্য থাকবেনা।
  • মুখের ছোট ছোট ব্রণ (congested skin) দূর করার ক্ষেত্রেও সলিসাইলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ ওয়েনমেন্ট ব্যবহার করতে পারেন।
  • অতিরিক্ত তেল চিটচিটে চেহারার জন্য বেনজোয়েল প্যারোক্সাইড (benzoyl peroxide) যুক্ত প্রসাধনী ব্যবহার করুন।
  • কনুইতে কালো ছোপ দূর করতে লেবুর খোসায় টিনি দিয়ে ভালো করে ঘষে নিন। এতে দাগ চলে গিয়ে কনুই নরম হবে।
  • মুখের ব্রণ আপনার সুন্দর্য নষ্ট করে। এক্ষেত্রে রসুনের কোয়া ঘষে নিন ব্রণের উপর। ব্রণ তাড়াতাড়ি মিলিয়ে যাবে।
  • ব্রণের কারণে যাদের চেহারায় ছোট ছোট গর্তের সৃষ্টি হয়েছে বা চেহারায় গাড় দাগ পড়ে গেছে তারা ভিটামিন ‘সি’ ও অম্ল যুক্ত প্রসাধনী ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া একজন বিউটিশিয়ানের সাথেও আপনি পরামর্শ করতে পারেন।
  • মুখের তাৎক্ষনিক লাবণ্য আনতে একটা ভেষজ রুপটান আছে। আধা চা চামুচ লেবুর রস, এক চা চামচ মধুর সঙ্গে মিশিয়ে মুখে ও গলায় লাগান। পনের মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটা আপনার মুখকে আদ্র রাখবে।
  • কামানোর সময় উল্টো দিক দিয়ে রেজার চালানোর কারণে পুরুষ ও মহিলা উভয়েরই অন্তর্বর্ধিত চুল জনিত সমস্যার (ingrown hairs problem) সৃষ্টি হতে পারে। এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ৩/৪ টি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেটকে গুঁড়ো করে তার সাথে পানি মিশিয়ে কাইয়ের মতো তৈরি করুন। তারপর মুখ অথবা গুপ্তাঙ্গের আশপাশের জায়গায় তার প্রলেপ দিন। কিছুক্ষণ পর তা শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন।
  • তৈলাক্ত ত্বকে ঘাম জমে মুখ কালো দেখায়। এক্ষেত্রে ওটমিল ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখবেন আধা ঘন্টা। আধা ঘন্টা পর ঠান্ডা পানিতে মুখ ধুয়ে নিন।
  • যাদের হাত খুব ঘামে তারা এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে লাউয়ের খোসা হাতে লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ।
  • আপনি যদি অপর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমান তাহলে আপনার ত্বক ফ্যাকাসে, নিস্তেজ এবং শুষ্ক দেখাবে । তাই আপনাকে প্রতি রাতে অবশ্যই কমপক্ষে সাত থেকে আট ঘন্টা ঘুমাতে হবে । এটা আপনার ত্বকের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ।
  • পানি শরীরের জন্য একটি অপরিহার্য উপাদান ।তাই পরিমাণ মতো পানি পান করুন । এটি আপনার ত্বককে সারাদিন প্রাণবন্ত করে রাখতে সাহায্য করবে ।
  • আপনার খাদ্য তালিকায় ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার রাখুন । এটা আপনার ত্বককে প্রভাবিত করে । পরিমিত পরিমাণে ভিটামিন এ এবং ই সমৃদ্ধ ফল এবং শাক-সবজি নিয়মিত গ্রহণ করুন । চর্বি ও তৈলযুক্ত খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন, এটা আপনার ত্বকে ব্রণ সৃষ্টি করতে পারে ।
  • বডি লোশন লাগানোর সবচেয়ে উৎকৃষ্ট সময় হলো গোসলের পর পর । কেননা এ সময় স্কিন সহজে লোশন শোষণ করে নেয় ।
  • এক গ্লাস পানির মধ্যে বরফ দিয়ে ওর মধ্যে মধু, লেবু এবং পুদিনা পাতা দিন শরবত করে নিন । সেই পানিটা পান করুন । এতে ত্বকের চমক বাড়বে ।
  • সূর্যের অতি বেগুনি (UV)রশ্মি ত্বক পুড়িয়ে ফেলে এবং স্ক্রিন ক্যান্সারের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় ।তাই রোদে বের হওয়ার ৩০ মিনিট পূর্বে সানস স্ক্রীম ত্বকে প্রয়োগ করতে হবে অথবা অল্প শসার রস, অল্প গ্লিসারিন ও অল্প গোলাপ জলের মিশ্রণ রোদে বের হওয়ার আগে ও পরে ব্যবহার করতে পারেন, মিশ্রণটি পোড়া ত্বকের জন্য উপকারী ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে ।
  • শরীরের মসৃণতা ধরে রাখতে প্রতিদিন একবার অত্যন্ত একবার সকাল অথবা রাতে ভাল মানের স্ক্রিন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে ।
  • সালফেট ফ্রি শ্যাম্পু ব্যবহার করুন । কেননা সালফেট চুলকে রাফ করে দেয় এবং চুলের কিউটিক্যালকে নষ্ট করে দেয় ।
  • সবসময় পরিষ্কার মেকআপ ব্রাশ নেওয়ার চেষ্টা করবেন । এত মুখে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে ব্রণ হওয়ার আশঙ্কা কমে যাবে । বছরে অন্তত তিনবার বা ৩/৪ মাস পর পর আইলাইনার এবং মাশকরা বদলে ফেলবেন ।
  • অনেকের চোখের নিচের কালি নিয়মিত সঙ্গী। চোখের নিচে কালি পড়ে অতিরিক্ত চিন্তা, রাত জাগার কারণে । চোখের নিচের কালি থেকে মুক্তি পেতে রাতে ঘুমানোর আগে শসা বা আলুর রস চোখের নিচে লাগিয়ে রাখুন । সকালে উঠে ধুয়ে ফেলুন ।
  • টমেটোর রস ও দুধ একসঙ্গ মিশিয়ে মুখে লাগালে রোদে জ্বলা বাব কমে যাবে।
  • যে সকল প্রসাধনীতে সলিসাইলিক অ্যাসিড বা সাধারণ তেল, যেমন: জলপাইয়ের তেল ইত্যাদি, রয়েছে চেহারার কালো দাগ দূর করার জন্য আপনি তা ব্যবহার করতে পারেন। এতে সাধারণ কালো দাগ দূর হয়ে যাবে। কিন্তু খুব গাড় কালো দাগ দূর না হলেও তা অনেকটা হালকা হয়ে আসবে।
  • মুখের ছোট ছোট ব্রণ (congested skin) দূর করার ক্ষেত্রেও সলিসাইলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ ওয়েনমেন্ট ব্যবহার করতে পারেন।
  • অতিরিক্ত তেল চিটচিটে চেহারার জন্য বেনজোয়েল প্যারোক্সাইড (benzoyl peroxide) যুক্ত প্রসাধনী ব্যবহার করুন।
  • ব্রণের কারণে যাদের চেহারায় ছোট ছোট গর্তের সৃষ্টি হয়েছে বা চেহারায় গাড় দাগ (hyperpigmentation) পড়ে গেছে তারা ভিটামিন ‘সি’ ও অম্ল যুক্ত প্রসাধনী ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া একজন বিউটিশিয়ানের সাথেও আপনি পরামর্শ করতে পারেন।
  • কামানোর সময় উল্টো দিক দিয়ে রেজার চালানোর কারণে পুরুষ ও মহিলা উভয়েরই অন্তর্বর্ধিত চুল জনিত সমস্যার (ingrown hairs problem) সৃষ্টি হতে পারে। এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ৩/৪ টি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেটকে গুঁড়ো করে তার সাথে পানি মিশিয়ে কাইয়ের মতো তৈরি করুন। তারপর মুখ অথবা গুপ্তাঙ্গের আশপাশের জায়গায় তার প্রলেপ দিন। কিছুক্ষণ পর তা শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন।
  • অতিরক্ত শুষ্কতা থেকে মুক্তি পেতে মধু, দুধ ও বেসনের পেষ্ট মুখে লাগান নিয়মিত। এতে ত্বকের বলিরেখা ও দূর হয়ে যাবে।
  • ঠোটেঁ কালো ছোপ পড়লে কাঁচা দুধে তুলো ভিজিয়ে ঠোটেঁ মুছবেন। এটি নিয়মিত করলে ঠোটেঁর কালো দাগ উঠে যাবে।
  • মুখের বাদামী দাগ উঠাতে পাকা পেঁপে চটকে মুখে লাগান, পরে ধুয়ে ফেলুন।
  • হাড়িঁ-বাসন ধোয়ার পরে হাত খুব রুক্ষ হয়ে যায়। এজন্য বাসন মাজার পরে দুধে কয়েক ফোঁটা লেবু মিশিয়ে হাতে লাগান। এতে আপনার হাত মোলায়েম হবে।
  • লিগমেন্টেশন বা কালো দাগ থেকে মু্ক্তি পেতে আলু, লেবু ও শসার রস এক সঙ্গে মিশিয়ে তাতে আধ চা চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে যেখানে দাগ পড়েছে সেখানকার ত্বকে লাগান।
  • পায়ের গোড়ালি ফাটলে পেঁয়াজ বেটে প্রলেপ দিন এ জায়গায়।
  • ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য প্রতিদিন ১৫ গ্রাম করে মেৌরি চিবিয়ে খান। খুব কম সময়ে রক্ত শুদ্ধ হয়ে ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে।
  • মুখে কোন র্যাশ বের হলে অড়হর ডাল বাটা পেষ্ট লাগান র্যাশের উপর। কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলুন। দাগ থাকবেনা।
  • পিঠের কালো ছোপ তুলতে ময়দা ও দুধ এক সঙ্গে মিশিয়ে পিঠে দশ মিনিট ধরে ঘষবেন। এটা নিয়মিত করলে পিঠের ছোপ উঠে যায়।
  • হাত পায়ের সৌন্দয্য অক্ষুন্ন রাখতে হাতে ও পায়ে আপেলের খোসা ঘষে নিন। এতে হাত ও পা অনেক বেশী ফর্সা দেখাবে।
  • সমপরিমান তুলসী পাতার রস ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে দুই বেলা নিয়মিত মুখে লাগান যেকোন দাগ মিলিয়ে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here